তৃতীয় বিয়ে ও গার্হস্থ্য হিংসা নিয়ে মুখ খুললেন নোবেল, মেনে নিলেন বহু মেয়ের সঙ্গে সম্পর্কের কথা

0
270

দেবলীনা ব্যানার্জী : দিন কয়েক আগেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে নিয়ে কুরুচিকর মন্তব্য করে তীব্র রোষের মুখে পড়েছিলেন বাংলাদেশের সংগীতশিল্পী নোবেল। তারপর আবার খবরের শিরোনামে আসেন গোপনে তৃতীয় বিয়ে ও স্ত্রীর ওপরে অত্যাচার মারধোরের খবরে। বর্তমানে তিনি থাকেন ঢাকার নিকেতনের একটি ফ্ল্যাটে। সেই ফ্ল্যাটে যাতায়াত করা নোবেলের এক বন্ধুই এই খবর সামনে এনেছেন।

২০১৯ সালের ১৫ নভেম্বর পাঁচ লক্ষ টাকা পণ নিয়ে মেহরুবা সালসাবিল নামের এক যুবতীকে বিয়ে করেছেন নোবেল। তাঁর বিয়ের সার্টিফিকেট সংবাদমাধ্যমের কাছে আসতেই খবর প্রকাশ্যে আসে। আর তারপরই শুরু হয় তুমুল বিতর্ক ও নিন্দার ঝড়। সাত মাস আগে গোপনে বিয়ে করা স্ত্রীকে এখন তিনবেলা মারধর করেন বলেও জানা গিয়েছে। যার জেরে বাংলাদেশের সমাজকর্মীরা গার্হস্থ্য হিংসা নিয়ে নোবেলের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন।

এই বিতর্ক প্রসঙ্গে অবশেষে নিজেই মুখ খুললেন মইনুল হাসান নোবেল। মন্তব্য করলেন, “এত মেয়ের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল যে গুনে শেষ করা যাবে না। এই বয়সে একটু-আধটু তো এরকম হয়েই থাকে”। সাথে  নিজের তৃতীয় বিয়েকে গুজব ও বিভ্রান্তিকর বলে উড়িয়ে দিলেন।  এর আগে তাঁর সঙ্গে কারও বিয়ে হয়নি, তবে অনেক সম্পর্ক ছিল বলে দাবি করেন তিনি। বলেন, “বিয়ের আগে তো সবার জীবনেই এমন প্রেম থাকেই। কারও কম, কারও বেশি। আমার একটু বেশিই ছিল।

এ অবস্থায় এখন যদি বলা হয় যে এটি আমার তৃতীয় বিয়ে, তা মোটেই ঠিক নয়। গুজব এবং বিভ্রান্তিকর।” অবস্থা এখন এমন পর্যায়ে যে, ত্রিপুরা পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে ভারতে এলেই গ্রেপ্তার করা হবে তাঁকে। ত্রিপুরার যুবক সুমন পালের অভিযোগের ভিত্তিতে দেশের প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে কুরুচিকর মন্তব্য করায় নোবেলের ভিসা বাতিল এবং তাঁর পাসপোর্ট বাজেয়াপ্ত করা হতে পারে।

বিতর্কিত সেই পোস্টের জন্য গায়ক নোবেলকে ডেকে পাঠিয়েছিল পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের। শুধু তাই নয় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন বা র‌্যাবের অফিসাররা তাঁকে জেরা করেন। জেরায় নিজের গানের প্রচারের জন্য বিতর্কিত পোস্ট বলেই জানান বাংলাদেশি গায়ক। এর আগেও বিশ্ব বরেণ্য কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বিরুদ্ধেও কুরুচিকর মন্তব্য করে বিতর্ক উসকে দিয়েছিলেন নোবেল।

জনপ্রিয় বাংলা টেলিভিশন চ্যানেলের রিয়ালিটি শো ‘সারেগামাপা’র মঞ্চ থেকেই খ্যাতির শিখরে উঠতে শুরু করেছিলেন মঈনুল আহসান নোবেল। তবে শো পরবর্তী সময়ে গানের থেকে বেশি বিতর্কেই জড়িয়েছেন। কিংবদন্তিদের বিরুদ্ধে অশালীন মন্তব্য থেকে ধর্ষণের অভিযোগে বিতর্কে বারবার জড়িয়েছেন তিনি। এবার সেসবের সঙ্গে একাধিক বিয়ে ও স্ত্রীকে মারধোরের অভিযোগও যুক্ত হল।

যদিও মেহরুবা সালসাবিল এর সঙ্গে  বিয়েটাকেই প্রথম বিয়ে বলছেন মঈনুল হাসান নোবেল। তাঁর কথায়, “প্রেম করে বিয়ে করেছি। পরিচয় হওয়ার পর আড়াই মাস প্রেম করেছি। একটা সময় আমরা দুজন সিদ্ধান্ত নিলাম বিয়ে করব। করে ফেলেছি।” নোবেলের জন্মস্থান বাংলাদেশের গোপালগঞ্জে। স্থানীয় একটি মিডিয়াকে নোবেলের এক বন্ধু জানিয়েছেন, স্কুলে পড়ার সময় থেকেই নারীকেন্দ্রিক একাধিক বিতর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন ‘গুণধর’ গায়ক।

এমনকী সে সময়ে জল এতদূর গড়িয়েছিল যে, স্বর্ণকলি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে বের করে দেওয়া হয়েছিল তাঁকে।স্থানীয় এক সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, এর আগে রিমি নামক এক যুবতীর সঙ্গে ঘর বেঁধেছিলেন বাংলাদেশি গায়ক। কিন্তু গায়কের বিরুদ্ধে বারবারই গার্হস্থ্য হিংসার অভিযোগ তুলে রিমি নামের সেই মহিলাই পরবর্তীতে ডিভোর্স দিয়েছিলেন নোবেলকে। এরপরও এক আত্মীয়াকে নোবেল বিয়ে করেন বলে জোর গুঞ্জন শুরু হয়। কিন্তু সেই সম্পর্কও ভেঙে গিয়েছিল।

নোবেলের এই স্ত্রী-কে মারধরের বিষয়টি নিয়ে এবার সরব হয়েছেন সমাজকর্মী অমি রহমান পিয়াল। তাঁর দাবি, আগের দুই স্ত্রী-র মতোই তৃতীয় স্ত্রীকেও বেধড়ক মারধর করেন নোবেল। সোশ্যাল পোস্টে পিয়াল লিখেছেন, “এই তো সপ্তাহ দুয়েক আগেই নিজের মা-বোনকে গভীর রাতে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছিলেন নোবেল। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি সামালায়। আর স্ত্রী? তাঁর কী অবস্থা? জি বাংলার সেলিব্রিটির প্রেমে পড়ে পরিবারের কাছে সম্পর্ক চুকিয়ে দিয়ে এল ওই যুবতী। তাঁকে নিয়ম করে তিনবেলা মারধর করে বাংলাদেশের সুপারস্টার সিঙ্গার। মানুষ যেমন তিন বেলা খাবার খায়, আমাদের গায়ক তিন বেলা স্ত্রীকে মারে।”

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here