লকডাউনে বনের গাছ সাফ অভিযানে ধরা পড়ল লক্ষাধিক টাকার কাঠ

0
73

মালবাজারঃ করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে দেশের সর্বত্র চলছে লক ডাউন। আর এই লকডাউনে সবার কাজকর্ম বন্ধ থাকলেও বন্ধ হয়নি বনের চোরা শিকারি ও গাছ কাটুয়াদের তৎপরতা। লক ডাউনের  মধ্যে জঙ্গল এলাকায় চুরি হয়ে যাচ্ছে বড় বড় গাছ।

যেহেতু এই লক ডাউনের সময় রাস্তাঘাট বা বিভিন্ন এলাকায় লোকজন গৃহবন্দী তাই এই সুযোগে চোরের দল জঙ্গল কেটে নিয়ে যাচ্ছে। তবে বন কর্মিরাও সজাগ রয়েছে। প্রতিদিন জঙ্গল এলাকায় বন্দুকধারি বন কর্মিরা টহল দিয়েই চলেছে। এই টহলদারীর মাঝে গোপন সুত্রে খবর পেয়ে, মঙলবার সন্ধ্যা ও বুধবার ভোরে অভিযান চালিয়ে বন বিভাগের ডায়না রেঞ্জ দুই  পৃথক জায়গা থেকে প্রচুর অবৈধ কাঠ উদ্ধার করে।

প্রথম অভিযানে শুল্কাপাড়া, খয়েরবাড়ী ডাঙাপাড়া এলাকার থেকে উদ্ধার হয় কাঠ। দ্বিতীয় ক্ষেত্রে সশ্রস্ত্র সীমা বলের ফালাকাটা ১৯ ব্যাটেলিয়ানের সাহায্যে অভিযান চালিয়ে ধরনীপুর কালিখোলা এলাকা থেকে অবৈধ কাঠ উদ্ধার করে ডায়না রেঞ্জ বনবিভাগ। অভিযানে নেতৃত্ব দেন বিট অফিসার কুনাল সিং রায়।

বন বিভাগ সুত্রে জানা গেছে বাজেয়াপ্ত শাল কাঠের মূল্য প্রায় দুই লাখ পয়ত্রিশ হাজার টাকা।বনবিভাগ সুত্রে  জানা গেছে এরকম অভিযান লাগাতার চলবে। সমস্ত সরকারী দপ্তর বন্ধ থাকায় বন বিভাগ বন ও বন্য সুরক্ষার কাজে ব্যস্ত থাকায় পরিবেশ প্রেমীরা বন বিভাগের কাজের প্রশংসা করেছেন।

চালসার পরিবেশ প্রেমী মানবেন্দ্র দে সরকার বলেন, লকডাউনে মানুষ গৃহবন্ধি থাকায় ও রাতে পুলিশের টহলদারী কম থাকায় এক শ্রেণীর ফরেস্ট ওফেন্ডার গাছ কাটতে তৎপর হয়ে উঠেছে। বনকর্মীদের নজরদারিতে সফল হয়নি। নিয়মিত এই অভিযান চালানো উচিত। বনকর্মীরা যে গৃহবন্ধি হয়নি তার প্রমাণ পাওয়া গেল।

মাল মাউন্টেন ট্রেকার ফাউন্ডেশনের সম্পাদক স্বরুপ মিত্র বলেন, বনকর্মীরা অত্যন্ত সময়মতো অভিযান চালিয়েছে। এরকম অভিযান নিয়মিত হলে বনের গাছ রক্ষা পাবে। এখন এদিকের পরিবেশ অত্যন্ত পরিস্কার। বাতাসে দূঃষন প্রায় নেই। এখন গাছ বাঁচানো অত্যন্ত দরকার।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here