কোরোনা সংক্রমনের লক্ষণ নিয়ে ফেরার জলপাইগুড়ির সরকারি চিকিৎসক ফারিন পারভেজ

0
4

উজ্জ্বল হোড়, জলপাইগুড়ি : অবশেষে সদর হাসপাতালের স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ ফারিন পারভেজকে নিয়ে জলপাইগুড়ি স্বাস্থ্য দফতরের উৎকণ্ঠা কাটলো, উল্লেখ্য, উত্তর প্রদেশের বাসিন্ধা ডাঃ ফারিন পারভেজ বিমানে বাড়ি থেকে ফিরে বর্তমানে জলপাইগুড়ি সদর হাসপাতালে প্রসূতি বিভাগে কর্মরত ছিলেন, সূত্রের খবর গত সোমবার ওনার মধ্যে বেশ কিছু শারীরিক অসুস্থতা যা কিনা কোরোনা ভাইরাসে আক্রান্ত দের মধ্যে দেখা যায় তেমন টাই লক্ষ করেন ওয়ার্ডে কর্মরত নার্স এবং অন্যান্য কর্মীরা।

এর পরেই ওই স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ শহরের একজন প্রসিদ্ধ মেডিসিনের চিকিৎসকের কাছে দেখান, সূত্রের খবর সেই চিকিৎসক ডাঃ ফারিন পারভেজকে আইসলেশনে থাকার পরামর্শ দেন, ইতিমধ্যে বিষয়টি সদর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এবং ইন্ডিয়ান মেডিকেল এসোসিয়েশনের নজরে আসে, নিয়ম অনুযায়ী সদর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কোরোনার লক্ষনের সঙ্গে মিল থাকায় উক্ত চিকিৎসককে স্বাস্থ্য দফতরের মেডিকেল বোর্ডের সামনে হাজির হতেও বলে।

এর পরেই ঘটনা অন্য দিকে মোড় নেয়, মঙ্গলবার স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ ফারিন পারভেজের আবাসনে স্বাস্থ্য দফতরের কর্মীরা গিয়ে দেখেন সেটি তালা বন্ধ, এর পরেই নড়েচড়ে বসে জেলা স্বাস্থ্য দফতর, সূত্রের খবর অনুযায়ী ,বিষয়টি জেলা শাসক এবং পুলিশ সুপারকেও জানানো হয়, ইতিমধ্যে এই চিকিৎসকের সঙ্গে গত কয়েক দিন কর্মরত নার্স এবং অন্যান স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত কর্মীরা আতঙ্কিত হয়ে পরেন।

অবশেষে বৃহস্পতিবার সকালে ইন্ডিয়ান মেডিকেল এসোসিয়েশনের জলপাইগুড়ি শাখার সম্পাদক তথা বিশিষ্ট চক্ষু বিশেষজ্ঞ ডাঃ সুশান্ত কুমার রায় জানান, এক প্রকার না জানিয়ে চলে যাওয়া সদর হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসক ফারিন পারভেজের মোবাইল টাওয়ার ট্রাক করে ওনার অবস্থান জানা গিয়েছে, ওই চিকিৎসক বর্তমানে উত্তর প্রদেশেই রয়েছেন।

এবং সেখাকার একটি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানে নিজের শারীরিক পরীক্ষা করিয়েছেন, উক্ত চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানের থেকে পাওয়া পরীক্ষার রিপোর্ট জলপাইগুড়ি স্বাস্থ্য দফতরের কাছেও পাঠিয়েছেন যাতে ওই চিকিৎসক  করোনা আক্রান্ত নয় বলেই উল্লেখ করা হয়েছে বলে জানান আই এম এর জলপাইগুড়ি শাখার সম্পাদক ডাঃ সুশান্ত কুমার রায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here