সমাজের মুখে থাপ্পড় কষালেন ন’জন ‘দেবী’, নারী দিবসের প্রাক্কালে প্রশংসিত কাজলের প্রথম শর্ট ফিল্ম

0
58

দেবলীনা ব্যানার্জী : আন্তর্জাতিক নারী দিবসের প্রাক্কালে  ধর্ষণের মত সামাজিক সমস্যা নিয়ে একদম নতুন দৃষ্টিভঙ্গির বার্তা দিল একটি ইউ টিউব শর্ট ফিল্ম। শর্ট ফিল্মে এরকম স্পর্শকাতর বিষয় উপস্থাপন করা মোটেও সহজ না। শর্ট ফিল্মটির প্রতিটি চরিত্রই আসলে মৃত। অধিকাংশেরই খুন হয়েছে ধর্ষণ হওয়ার পর। মৃত্যুর পর তাদের জগতকে তুলে ধরেছেন বাঙালি পরিচালক প্রিয়াঙ্কা বন্দ্যোপাধ্যায়।

‘দেবী’ নামের এই ১৩ মিনিটের শর্ট ফিল্ম দিয়েই ডিজিটাল মাধ্যমে ডেবিউ করছেন কাজল। এর আগে সঈফ আলি খান থেকে শুরু করে ইমরান হাশমি, হালফিলের জাহ্নবী কপূর থেকে শুরু করে কিয়ারা আদবানি, অনেকেই কাজ করে ফেলেছেন ডিজিটাল মাধ্যমে। এবার সেই তালিকায় নাম উঠল কাজলেরও। অবশ্য ‘দেবী’  যে শুধু কাজলের ফিল্ম, তা নয়। এই ছবিতে মুখ্য ভূমিকায় আছেন ন’ জন মহিলা।

আর তাঁদের চরিত্রে অভিনয় করছেন শ্রুতি হসন, নেহা ধুপিয়া, নীনা কুলকার্নি, মুক্তা বার্ভে, সন্ধ্যা মাত্রে, রমা জোশী, শিবানী রঘুবংশী এবং যশস্বিনী দয়ামা। নাম যখন দেবী, তখন বোঝাই যাচ্ছে যে, গল্পটি অতি অবশ্যই মহিলাকেন্দ্রিক। চরিত্রদের লুক থেকেও স্পষ্ট যে, তাঁরা সমাজের বিভিন্ন স্তরের লোক, বিভিন্ন জাতি-ধর্মের লোক। ১৮ থেকে ৮০-র মধ্যের এইসব মহিলারা থাকেন একটি ছোট্ট বাড়ির মধ্যে। প্রতিনিয়ত বেড়ে চলেছে মহিলাদের সংখ্যা।

একের পর এক বাড়ির সদস্য বেড়ে চলায় লেগে যাচ্ছে ঝগড়াও। সদস্যদের মধ্যে কয়েকজনের মতামত আর কোনো মহিলাকে ঢুকতে দেওয়া যাবে না বাড়িতে। অন্যাদিকে একটি দল বলছে যারা বাইরে অপেক্ষা করছে তাদের কিছুতেই ফেরত পাঠানো যাবে না। ঠিক কী নিয়ে বাড়ছে সমস্যা। প্রথমদিকে বিষয়বস্তু বুঝতে না পারলেও পরতে পরতে খুলতে শুরু করল কাহিনী। এখনকার সময়ে দাঁড়িয়ে ধর্ষিতাদের এক ভিন্ন জগতকে তুলে ধরেছেন পরিচালক প্রিয়াঙ্কা।

একটি কক্ষে নয়জন আটকে পড়া নারী, গল্পের এক পর্যায়ে এসে জানা যায়, তারা সবাই ধর্ষণের শিকার! প্রবীণ ও নবীন সেরা ন’জন অভিনেত্রী ‘দেবী’তে অভিনয় করেছেন। প্রত্যেকেরই অভিনয় চমৎকার। বিষয়বস্তু, চিত্রনাট্যের প্রশংসার অন্ত হয় না। ধর্ষণ নিয়ে স্পর্ষকাতর ছবি অনেকেই করে থাকেন, তবে এই ভিন্ন জগতের কথা নিয়ে প্রিয়াঙ্কাই গবেষণা করেছেন। ছোটখাটো বিষয় নিয়েও রীতিমত ভেবেছেন তিনি।

প্রথমেই উল্লেখিত সমাজ অধিকাংশ মানুষ ধর্ষণের জন্য মহিলাদের পোশাক, আচরণকে দোষ দিয়ে থাকেন। তাই এই ছবিতে সমস্তরকমের পোশাক পরা মহিলাদের দেখানো হয়েছে। বোরখা থেকে শাড়ি, হট প্যান্ট, ফর্ম্যাল শার্ট প্যান্ট। এছাড়াও শেষের দিকে যেভাবে মুহূর্তের মধ্যে গল্পের মোড় ঘুরল তাতে সকলেরই বাকরুদ্ধ হয়ে যাওয়ার কথা।

বহুদিন পর এক স্পর্শকাতর বিষয় নিয়ে ভিন্ন ধারার ছবি পেল দর্শকমহল। নারী দিবসের প্রাক্কালে এমন বিষয় নিয়ে ছবির প্রশংসায় পঞ্চমুখ সিনেদুনিয়া। দিল্লির নির্ভয়া থেকে হায়দরাবাদ ধর্ষণ কাণ্ডই হোক কিংবা কাঠুয়া রেপ কেসের রোমহর্ষক ঘটনা, কাঁপিয়ে দিয়েছে গোটা দেশকে। কিন্তু তাতেও কি বর্তমান পরিস্থিতির কোনও হেরফের হয়েছে? ১৩ মিনিটের এই শর্ট ফিল্ম সেই প্রশ্নই ছুঁড়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here