মূক ও বধির মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর জন্য প্রার্থনা করলো গ্রামবাসীরা

0
72

সুশান্ত নন্দী, ইসলামপুর: যে মেয়েটি কানে ঠিকমত শুনতে পায় না এবং কথাও বলতে পারে না অর্থাৎ মূক ও বধির। সেই মেয়েটি মাধ্যমিকে পাস করার জন্য এবার যেন সর্বশক্তি দিয়ে ঝাঁপিয়ে পরলো। কারণ সরকারিভাবে বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন এই ধরনের পড়ুয়াদের জন্য বিশেষ কোনো ব্যবস্থা বা সুবিধা কিংবা পরিকাঠামো কোনটাই না থাকার জন্য বিগত বছর মাধ্যমিক পরীক্ষায় বসেও অকৃতকার্য হয়ে তার মাশুল গুনতে হয়েছে ওকে।

এবার তাই দ্বিতীয়বারের জন্য মানসিক শক্তিকে রীতিমতো চাঙ্গা করে পরীক্ষায় বসছে গোয়ালপোখর এক ব্লকের নন্দ ঝাড়  হাইস্কুলের শেফালী বিশ্বাস। কানে ঠিক ভাবে শুনতে পায়না না বলে কিংবা বলতে পারেনা বলে ওর কোন প্রাইভেট টিউটর জোটেনি কিংবা বিদ্যালয়ে নিয়মিত গেলেও বিদ্যালয়ের ক্লাস টিচার দের আলোচনা কিংবা পাঠ ওর কানে এসে পৌঁছায়নি।

সে অসুবিধার কথা বলতেও পারেনা।  তবুও আকার-ইঙ্গিতে বুঝে নেবার চেষ্টা করে। এসব সমস্যার জন্য ঠিক ভাবে পড়াটা সে বুঝে উঠতে পারে না। তবুও এবার বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষিকা এবং এলাকার বাসিন্দাদের একাংশ এগিয়ে এসেছে মানবিকভাবে। মঙ্গলবার মাধ্যমিকের প্রথম পরীক্ষার দিন ওর জন্য সবাই প্রার্থনা করেছে। কারণ ওর পারিবারিক অর্থনৈতিক অবস্থা ভালো নয়। রীতিমতো অস্বচ্ছল পরিবারের মেয়ে শেফালী।

খেলাধুলায় ভীষণ ভালো  সে।প্রাথমিক স্তরে জেলা পর্যায়ে গিয়ে খেলাধুলা করে এসেছে। এমনকি সেলাইতে ও বেশ না করেছে সে। কিন্তু পরিকাঠামোর জন্য পড়াশোনায় সেইভাবে এগিয়ে যেতে পারেনি। বাবা মাছ ধরে যা সামান্য আয় করে তা দিয়ে সংসার চালাবার চেষ্টা করলেও মাঝেমাঝেই আর পেরে ওঠে না। আর মা সংসার চালাতে এবং মেয়ের পড়াশোনার খরচ যোগাতে মানুষের বাড়ি কাজ করে।

এদিন ওই পড়ুয়া অনেক আশা নিয়ে মনিভিটা হাইস্কুলে মাধ্যমিক পরীক্ষা দিতে  যায়। যাবার আগে এলাকার বাসিন্দারা ওর জন্য সবাই প্রার্থনা করলো। যেন ওই মেয়ে দু পায়ে দাঁড়াতে পারে মাধ্যমিক পাস করে। কিংবা ও যেন স্বনির্ভর হতে পারে। নন্দঝার  হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা রুমা দাস জানান, ওর জন্য তারা সবাই মানবিক ভাবে এগিয়ে এসেছেন।সেন্টারে গিয়ে ওর জন্য খোঁজ খবর নিয়েছেন। এলাকার শিক্ষক ও সমাজকর্মী চন্দন পাল জানান, শেফালী যে সেন্টারে পরীক্ষা দিচ্ছে সেই সেন্টার ইনচার্জ এর সঙ্গে কথা বলে ওর জন্য পৃথক ভাবে পরীক্ষা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here