ছাত্র পরিষদের দুই পক্ষের সংঘর্ষে রণক্ষেত্রের চেহারা নিল কলেজ চত্বর

0
38

সুমন মণ্ডল, কোচবিহার  :  তৃণমূল ছাত্র পরিষদের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে রণক্ষেত্রের চেহারা নিল কলেজ চত্বর। সোমবার দুপুরে দুই পক্ষের আক্রমণ প্রতিআক্রমনের ঘটনায় আহত হয় উভয় পক্ষের দুই ছাত্র। এদের মধ্যে সাগর সরকার নামে কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র বর্তমানে কোচবিহার জেলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। অপরদিকে  কলেজের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র রাকেশ আলী অপর পক্ষের আক্রমণে দিনহাটা মহকুমা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

কলেজে ছাত্রসংগঠনের দুইপক্ষের গন্ডগোল কে ঘিরে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত সেখানে ছুটে যায়। তৃণমূল ছাত্র সংগঠনের রাকেশ আলী নামে এক ছাত্রকে  রাস্তায় ফেলে মারধরের অভিযোগ ওঠে। এদিকে ঘটনার প্রতিবাদে উভয়পক্ষের থেকে পুলিশের কাছে ঘটনার ছাত্র ছাত্রীদের নিরাপত্তার দাবি জানানো হয়েছে।দিনহাটা কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র তৃণমূল যুব কংগ্রেস নেতা অজয় রায় ঘনিষ্ঠ আমির হোসেন বলেন এদিন তারা কলেজে বসে ছিলেন।

সেই সময় তাদের এক ছাত্রীকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করা হয়। এর প্রতিবাদ করলেই কিছু বহিরাগত যারা কলেজ ছাত্র অলোক নিতাই দাসের খুনের ঘটনায় অভিযুক্ত তাদের নেতৃত্বে দিনহাটা কলেজের বাইরে থেকে প্রথমে পাথর ছোড়ার পর পরে কলেজে ঢুকে আক্রমণ করে। এরপর তারা কলেজের পরিবেশকে অশান্ত করে তোলার চেষ্টা করে। কলেজের আরেক ছাত্রী সাবানা খাতুন বলেন কলেজ ছাত্র অলোক নিতাই দাস খুনের ঘটনায় যারা অভিযুক্ত তারাই এদিন কলেজে ঢুকে ছাত্র-ছাত্রীদের উপর আক্রমণ।

কলেজের এক ছাত্রীকে অশালীন ভাষায় গালিগালাজ করে। প্রতিবাদ করতে গেলে তারা কলেজের বাইরে থেকে আক্রমণ ছাড়াও ভিতরে ঢুকে ও মারধর করে। তাদের এক ছাত্র রাকেশ আলীকে রাস্তায় ফেলে দিয়ে মারধর করা হয়। বর্তমানে সে দিনহাটা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। গোটা ঘটনা ছাত্রসংগঠনের উর্দ্ধতন নেতৃত্ব কেউ জানানো হয়েছে বলে তিনি জানান। এদিকে কলেজের আরেক পক্ষ ছাত্র সংগঠনের প্রাক্তন জেলা সভাপতি সাবির সাহা চৌধুরী ঘনিষ্ঠ সুজন বর্মন বলেন এদিন সে কলেজে গেলে সাবানা খাতুন নামে এক ছাত্রী তাকে মারধর করে এবং তার গলায় থাকা মালা ছাড়াও পাঁচ  হাজার টাকা পকেট থেকে নিয়ে নেয়।

এবং তাদের এক ছাত্রকে মারধর করে। এনিয়ে পুলিশের কাছেও  অভিযোগ জানানো হয়েছে। এদিকে ঘটনার প্রতিবাদে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের প্রাক্তন জেলা সভাপতি সাবির সাহা চৌধুরীর অনুগামীরা দিনহাটা থানায় বিক্ষোভ দেখায়। অবিলম্বে ঘটনায় দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে সরব হয়। বিষয়টি নিয়ে দিনহাটা কলেজ পরিচালন সমিতির সভাপতি বিধায়ক উদয়ন গুহ বলেন পুলিশকে বলা হয়েছে কলেজের যে গন্ডগোল করার চেষ্টা করবে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য।

যুব তৃনমূলের দিনহাটা শহর ব্লক নেতা অজয় রায় বলেন আগে যারা কলেজে তোলাবাজি করতো তারা আবার নতুন করে কলেজ কে অশান্ত করে তোলার চেষ্টা করছে। এদিনের ঘটনা সহ বিস্তারিত সব কিছু উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। পাশাপাশি কলেজে কোনরকম শান্তি বিঘ্নিত হোক তা কোন ভাবেই তারা মেনে নেবেন না। এদিনের বিষয়টি নিয়ে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের প্রাক্তন জেলা সভাপতি সাবির সাহা চৌধুরী বলেন যুব তৃণমূল নেতা অজয় রায়ের নেতৃত্বে কিছু বহিরাগত কলেজে ঢুকে শান্ত কলেজকে অশান্ত করে তোলার চেষ্টা করে। গোটা ঘটনা তারা প্রশাসন এবং দলের নেতৃত্বকে জানিয়েছেন।

বিষয়টি নিয়ে কলেজের ভারপ্রাপ্ত শিক্ষক দেবাশীষ দাস  বলেন এদিন কলেজের ভিতরে দু’পক্ষের মধ্যে সাময়িক উত্তেজনা হয়েছিল। পরে অবশ্য পুলিশ প্রশাসনের হস্তক্ষেপে দ্রুত তা মিটে যায়। পুলিশকে সবকিছু জানানো হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে দিনহাটা থানার আইসি সঞ্জয় দত্ত বলেন ছাত্র সংগঠনের দুই পক্ষের মধ্যে গন্ডগোলের জেরে দুইজন আহত হয়েছে। তবে এনিয়ে কোন অভিযোগ জমা পড়েনি।  পুলিশ ঘটনার দিকে নজর রেখেছে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here