চা বাগানে চিতা শুমারির আশ্বাস দিলেন বনমন্ত্রী

0
30

মালবাজার: ডুয়ার্সের চাবাগান এলাকায় বর্তমান সময়ে এক জলন্ত সমস্যা চিতাবাঘের উপদ্রব। প্রায় প্রতিটি চা বাগানের আবাদি এলাকা গুলি চিতাবাঘের ডেন হয়ে উঠেছে। মাঝেমধ্যেই চিতাবাঘের আক্রমণে আক্রান্ত হচ্ছে চাবাগানের শিশু কিশোর থেকে শ্রমিকরা পর্যন্ত। পাতা তোলার সময়  চিতাবাঘের উপস্থিতি আছে কিনা তা যাচাই করতে আবাদি এলাকায় ঢাক পেটানো শুরু হয়েছে অনেক চা বাগানে।

এইরকম পরিবেশে ডুয়ার্সের চাবাগান গুলিতে কি সংখ্যক চিতাবাঘ রয়েছে?  তাার  হিসাব সংগ্রহের জন্য এই চিতাবাঘ সুমারির দাবী তুলেছিল এই এলাকার পরিবেশ প্রেমীরা। পরিবেশ প্রেমীদের এই দাবী গুরুত্ব দিয়ে আলোচনা করা হবে। সোমবার মালবাজার শহরে এসে এমন আশ্বাস দিলেন রাজ্যের বন মন্ত্রী রাজীব বন্দোপাধ্যায়। সোমবার দুফুর ১টা নাগাদ মন্ত্রী শ্রী বন্দোপাধ্যায় বক্সা বনাঞ্চলে যাওয়ার পথে মাল উদ্যানে কিছু সময় দাড়ান।

সেই সময় এই বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে মন্ত্রী বলেন, আপনারা যখন এমন একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে জানালেন যে বিষয়টি নিয়ে অতি সত্বর অফিসার সাথে আলোচনা করব। বিষয়টি আমার গোচরে ছিল না। আমি সত্বর আলোচনা করব। বন ও বন্যপ্রাণী রক্ষার জন্য সব রকম প্রস্তাব খতিয়ে দেখা হবে। আমরা চাইনা মানুষের সাথে বন্য প্রানীর সংঘাত বাড়ুক। এছাড়াও নেওরাভ্যালিতে বাঘের উপস্থিতি নিয়ে উচ্চাসিত মন্ত্রী জানান, ওখানে বাঘের উপস্থিতি ভালো খবর।

আমরা সেখানকার বাঘ সম্পর্কে জানতে আরও সিসি ক্যামেরা বসাব। আধুনিক প্রযুক্তির সাহায্য নেব। মন্ত্রী আশ্বাসে খুশি উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন পরিবেশ প্রেমীরা। উত্তর বংগের বিশিষ্ট পরিবেশ প্রেমী ও সমাজ কর্মী অনিমেষ বসু বলেন, খুব ভালো খবর। চাবাগান গুলিতে চিতার উপদ্রব বাড়ছে। এই ঘটনা উদ্বেগ জনক। এজন্য চিতাবাঘের একটা পরিসংখ্যান করা জরুরি ছিল। মন্ত্রী এ বিষয়ে আশ্বাস দিয়েছেন। এটা খুব ভালো খবর এব্যাপারে আমাদের সাহায্যের প্রয়োজন হলো অবশ্যই করব। শুধু অনিমেষ বাবু নয়, নফসর আলি, মানবেন্দ্র দে সরকার সহ অন্যান্য এই সংবাদে সাধুবাদ জানিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here