ফের রক্তাক্ত জে এন ইউ, ঝান্ডা ছেড়ে ব্যাপকতম প্রতিবাদের ডাক

0
121

নিউজ ডেস্কঃ আবারও রক্ত ঝরল দিল্লির জওহরলাল নেহরু ইউনিভার্সিটিতে। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের সভাপতি ঐশী ঘোষ গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। শুধু ছাত্র সংসদের সভানেত্রী নন, আক্রান্ত হয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপিকা সুচরিতা সেনও। অভিযোগের তির গেরুয়া শিবিরের দিকে। এই ঘটনার জেরে আবারও দেশের রাজনীতি উত্তপ্ত হয়ে উঠল।

দিল্লির জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে দেশের বিজেপি বিরোধী বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের শীর্ষ নেতৃত্ব। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদ বামপন্থীদের দখলে। সম্প্রতি ছাত্র সংসদ নির্বাচনে গেরুয়া শিবিরের বিপর্যয় হয়। পশ্চিমবঙ্গে সিপিএমের সঙ্গে সম্পর্ক আদায়-কাঁচকলায় থাকলেও রাজনীতির বাছবিচার না করে এই আক্রান্ত পড়ুয়াদের পাশে দাঁড়িয়েছে এরাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসও।

তৃণমূলের একটি প্রতিনিধি দল সেখানে যাবেন এমন সিদ্ধান্ত ইতিমধ্যেই নেওয়া হয়েছে তৃণমূলের পক্ষ থেকে। তৃণমূলের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু। রবিবার এক প্রশ্নের জবাবে বিমান বসু বলেন, দিল্লির জেএনইউ বিশ্ববিদ্যালয় যে বর্বরোচিত ঘটনা ঘটেছে তার নিন্দা জানানোর কোনো ভাষা নেই। সেখানে শুধু ছাত্র-ছাত্রীরাই নন আক্রান্ত হয়েছেন অধ্যাপক অধ্যাপিকারাও।

সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র তার ট্যুইট বার্তায় জানিয়েছেন জেএনইউ ছাত্র সংসদের সভাপতি ঐশী ঘোষের মাথায় গভীর ক্ষত। পুলিশি সহায়তা নিয়ে মুখোশধারী সংঘ শাবকদের কাপুরুষোচিত আক্রমণ। সূর্যকান্ত মিশ্র তার টুইট বার্তায় আক্রান্ত ঐশী ঘোষ এবং আক্রান্ত অধ্যাপিকা সুচরিতা সেনের ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, কাল পরশুর মধ্যে রাজ্যজুড়ে সব অংশের মানুষকে নিয়ে, প্রয়োজনে ঝান্ডা ছেড়ে ব্যাপকতম প্রতিবাদ হোক।

বারবার সংবাদ শিরোনামে উঠে আসে দিল্লির জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়। বিজেপি তথা সংঘ বিরোধী আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকা নিতে দেখা যায় এই বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়াদের। আর আক্রান্ত হতে হয় সেখানকার বিদ্রোহী ছাত্রদের। কেন্দ্রীয় সরকারের গৃহীত নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রতিবাদে দিল্লির এই বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলন তীব্রতর রূপ নিয়েছে। এনআরসির প্রতিবাদে গর্জে উঠেছেন এখানকার পড়ুয়ারা।

জহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়াদের অভিযোগ, গেরুয়া শিবিরের তরফ থেকে বারবার তাদের উপর আক্রমণ চালানো হচ্ছে। কেন্দ্রীয় সরকারের নিয়ন্ত্রণাধীন পুলিশ বিজেপির মদতে পড়ুয়াদের উপর নিপীড়ন চালাচ্ছে বলেও অভিযোগ তোলা হয়েছে। আর এই দিনের ঘটনায় সেই অভিযোগকে আরো শক্ত ভিতের ওপর দাঁড় করালো। যার পরিপ্রেক্ষিতে বিজেপি বিরোধী দেশের সব রাজনৈতিক দলই তীব্র নিন্দা জানানোর পাশাপাশি  ময়দানে নেমে আন্দোলনে শামিল হওয়ার কথা ঘোষণা করেছে। সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র পতাকা ছেড়ে একসঙ্গে যে আন্দোলনের ডাক দিয়েছেন তা গেরুয়া শিবিরের বিরুদ্ধে ঐক্যমত্য গড়ে উঠবে বলেই মনে করছে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ মহল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here