জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মাটি কাটছে ওরা, উদাসীন প্রশাসন

0
73

ইসলামপুর : যত্রতত্র মাটি কাটতে গিয়ে মাটির চাঁই ভেঙে পড়ে একাধিক মৃত্যুর ঘটনা ঘটলেও এ বিষয়ে সতর্ক হননি গ্রামীণ এলাকার মানুষজন। আর তাই বর্ষা পেরোনোর পর বেশ কয়েক মাস ধরে যেখানে সেখানে এভাবে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলে মাটিকাটার অভিযান। বিশেষ করে যেই এলাকা থেকে আঠালো মাটি বের হয়, সেই মাটি খুঁড়ে বের করে বাড়ি নিয়ে যান গ্রামীণ এলাকার বাসিন্দারা।

তা দিয়েই উনুন তৈরি সহ বিভিন্ন কাজ করেন তারা। এমনকি ঘর তৈরীর কাজেও সেগুলো মাটি ব্যবহার করা হয়। উত্তর দিনাজপুর জেলার ইসলামপুর ব্লকের গোবিন্দপুর, মাটিকুন্ডা এক, মাটি কুন্ডা দুই, গোবিন্দপুর এবং খুন্তি সহ বিভিন্ন গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় এ ধরনের দৃশ্য দেখা যাবে। সরকারি জমি থেকে মাটি সংগ্রহ করার ফলে একদিকে যেমন জমির নাব্যতা তৈরি হচ্ছে তেমনি মৃত্যুরও ঘটনা ঘটছে।

এবিষয়ে রীতিমতো উদাসীন স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েত থেকে শুরু করে প্রশাসনও। যদি সংশ্লিষ্ট বিষয়ে গ্রামবাসীদের প্রশাসন কিংবা জনপ্রতিনিধিরা সতর্ক না করেন তবে এই প্রবণতা ধীরে ধীরে বাড়তে থাকবে বলে মনে করছেন ওয়াকিবহাল মহল। মাটি কাটতে কাটতে কথা হচ্ছিল নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক গ্রামবাসীর সঙ্গে। তিনি জানান, এই জাতীয় এটেল মাটি পাওয়া খুব মুশকিল। অতিরিক্ত অর্থ দিয়ে সংগ্রহ করা তাদের সাধ্যের বাইরে।

অথচ এটি একটি প্রয়োজনীয় জিনিস। তাই বিভিন্ন জায়গায় তারা খুঁজে বেড়ান এই মাটি। যেখানে পাওয়া যায়  সন্ধান পেয়ে একে একে তারা সেই মাটি সংগ্রহ করেন। তিনিও সংগ্রহ করছেন। বাড়িতে উনুন তৈরির কাজে যেমন লাগানো হয় তেমনি অনেকেই অতিরিক্ত মাটি বিক্রি করে দুটো পয়সা রোজগার করেন বলে জানান তিনি। ইসলামপুর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি শ্যামল সরকার বিষয়টি খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here