অব্যাহত হাতির তান্ডব, দিনে পথ অবরোধ রাতে রেঞ্জ অফিস ভাঙচুর

0
31

মালবাজার: মাল ব্লকের কাঠামবাড়ি এলাকায় হাতির তান্ডব অব্যাহত। বনবিভাগের আচরণে ক্ষুব্ধ জনতা দিনের বেলা প্রায় আড়াই ঘন্টা রাজ্য সড়ক অবরোধ করা। আবার রাতের বেলা বনবিভাগের উপর বিরক্ত হয়ে এক দল মানুষ কাঠামবাড়ি রেঞ্জ অফিস ভাঙচুর করল। গাড়ির উপর ভাঙচুর চালায়। এতে কয়েকজন বনকর্মী জখম হয়। আতংকিত বনকর্মীদের পক্ষ থেকে থানায় এজাহার করা হয়।

স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, শুক্রবার সকালে হাতির আক্রমনে দেওথান কুজুর নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়। তার বাড়ি কৈলাশপুর ক্যানেল বস্তিতে। সকালে বনকর্মীরা তার মৃতদেহ ধানক্ষেতের মধ্যে পড়ে থাকতে দেখে তার পরিবার বা পুলিশ কাউকে না জানিয়ে মাল সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের নিয়ে আসে বলে অভিযোগ। এই অমানবিক আচরনের প্রতিবাদ জানিয়ে ক্ষুব্ধ জনতা ক্রান্তি – ওদলাবাড়ি রাজ্য সরক অবরোধ করে।

বেলা ১২.৩০ মি নাগাদ মিমাংসা হলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। ওই দিন রাতে আবার এক বুনো হাতি ক্যানেল বস্তিতে তান্ডব শুরু করে। এক মহিলার ঘর ভেঙে তছনছ করে। সেই সময় বনদপ্তরে একাধিক বার খবর দিলেও বনকর্মীরা কেউ ঘটনাস্থলে আসেনি বলে অভিযোগ। এতেই ক্ষুব্ধ হয়ে এক দল মানুষ কাঠামবাড়ি রেঞ্জ অফিস ভাঙচুর করে। স্থানীয় লোকজন বনবিভাগের উপর ক্ষোভ উগরে দেন।

অপরদিকে বনকর্মীরা জানায়, যেসময় খবর আসে সেই সময় একটা গাড়ি অন্যত্র ছিল। অন্য গাড়ি নিয়ে ঘটনাস্থলে যাই। কিন্তু, আচমকা কিছু লোক আমাদের গাড়ি আক্রমণ করে। ঢিল মেরে গাড়ির কাঁচ ভেঙে দেয়। গাড়ি চালক আইনুল ইসলাম জখম হয়। মনিরুল হক ও দীলিপ রাউত নামের দুই জন জখম হয়। এরপর রাতের বেলা একদল মানুষ রেঞ্জ অফিস ভাঙচুর চালায়। পরে রেঞ্জার কাজি শাহাবুদ্দিন রহমান ক্রান্তি ফাঁড়িতে অভিযোগ করেন।

স্থানীয় লোকজন অবশ্য বনকর্মীদের অসহযোগিতা ও অমানবিক আচরনের কথা বার বার বলতে থাকে। এই ঘটনার পর উর্ধতন কোন বনাধিকারিক ঘটনাস্থলে না আসায় বনকর্মীরা খানিক হতাশ।এনিয়ে বৈকুন্ঠপুর ডিভিশনের ডিএফওর সাথে যোগাযোগ করা হলে। ডিএফও উমারানী বলেন, ঘটনার পর থানায় অভিযোগ করা হয়েছে। পরবর্তী পদক্ষেপ পুলিশ নেবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here