অশ্লীলতার অভিযোগে সম্প্রচার নিষিদ্ধ করার দাবি সলমন খানের ‘বিগ বস’ এর

0
278

 

দেবলীনা ব্যানার্জীঃ জনপ্রিয় রিয়ালিটি শো ‘বিগ বস’ এর সম্প্রচার শুরু হওয়ার এক সপ্তাহের মধ্যেই বিতর্ক দানা বাঁধতে শুরু করেছে। শো বন্ধ করার দাবি তুলে কেন্দ্রীয় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রকে এক চিঠি পাঠানো হয়েছে দ্য কনফেডারেশন অফ অল ইন্ডিয়া ট্রেডার্সের (সিএআইটি) তরফে। অভিযোগ জানিয়ে লেখা হয়েছে, এই শো ঘিরে অশ্লীলতা এতটাই বেড়ে গিয়েছে যে তা পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে বসে দেখা যাচ্ছে না। ভারতীয় ঐতিহ্য এবং সংস্কৃতিতেও তা তীব্র প্রভাব পড়ছে। আমাদের মতো দেশে এই ঘটনা কখনই অনুমোদন যোগ্য নয়। ওই চিঠিতে আরও লেখা হয়েছে, টিআরপির লোভে নির্মাতার সবই ভুলতে বসেছেন। আমাদের মতো দেশে যে কোনও বাড়িতেই ছোট থেকে বড় সকলে একসঙ্গে বসে টিভি দেখেন।

সিএআইটি’র অভিযোগের তীর মূলত ‘বেড ফ্রেন্ড ফরেভার’ নামক ‘বিগ বস’-এ যে পর্ব দেখানো হয়েছে, তার দিকে। তাঁদের মতে, ভারতীয় সংস্কৃতি নিয়ে তা জনগণের কাছে ভুল বার্তা দিচ্ছে। সম্প্রতি টেলি অভিনেত্রী রেশমি দেশাইকে নিয়েই জলঘোলা শুরু। হঠাৎ করেই তাঁকে একদিন বলা হয় সিদ্ধার্থ শুক্লার সঙ্গে একই বিছানায় শোওয়ার জন্য। সরাসরি এরকম প্রস্তাব আসার পর খানিকটা অস্বস্তিতে পড়ে যান অভিনেত্রী। তাঁর সেই মুহূর্ত ধরাও পড়ে টিভির পর্দায়। এই দেখেই নড়েচড়ে বসে সিএআইটি। ঘটনার পরই তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী প্রকাশ জাভরেদকরের কাছে একটি চিঠি পাঠানো হয়। চিঠিতে বিগ বস ১৩-এর এই এপিসোডের কথা উল্লেখ করা হয়।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকরকে পাঠানো ওই চিঠিতে বলা হয়েছে, “বেড ফ্রেন্ড ফরেভার-এর এই ধারণাটি অত্যন্ত আপত্তিজনক এবং তা টেলিজগতের মূল্যবোধকে বিশেষভাবে আঘাত করে।  বর্তমানে এই শো শালীনতার সকল সীমা ছাড়িয়ে গিয়েছে।”ট্রেড বডির সেক্রেটারি জেনারেল প্রবীণ খান্ডেলওয়াল এপ্রসঙ্গে জানান, “ওই শোয়ের প্রত্যেকটি এপিসোড সেন্সর বোর্ডের খুঁটিয়ে দেখা উচিত। ওখানে যা হচ্ছে তা একেবারেই ঠিক নয়। বাড়ির সকলের সঙ্গে বসে এই শো দেখা যায় না।”

তবে এই প্রথম নয়, এর আগেও বিগ বস-এর বিরুদ্ধে এই জাতীয় অভিযোগ এসেছে। ২০১৭ সালে তামিল বিগ বস-এর বিরুদ্ধে একটি স্থগিতাদেশ জারি করার অনুরোধ করা হয় এই বলে যে ওই শো-তে মহিলাদের অত্যন্ত সংকীর্ণ দৃষ্টিভঙ্গি থেকে দেখা হয় এবং সমাজের দরিদ্র মানুষের প্রতিও খুবই অসম্মানজনক মনোভাব রয়েছে। তামিল বিগ বস-এর প্রথম সিজন নিয়ে জলঘোলা কম হয়নি। সাম্প্রতিক বিগ বস সিজন ১৩ নিয়েও তাই এই বিরোধিতার জল অনেক দূর গড়াতে পারে বলে ধারণা ওয়াকিবহাল মহলের।