পুজোতে শিলিগুড়ি মাতাতে আসছে নতুন স্বাদ ‘রাজসাহী বিরিয়ানি’ এবং ‘চিকেন চারুলতা’

0
657

শিলিগুড়ি: শিলিগুড়ির খাদ্য রসিকদের জন্যে এবার পুজোয় তাক লাগাতে চলেছে উত্তরবঙ্গে এই প্রথম দুটি নতুন স্বাদ। বলা হচ্ছে বাংলার হারিয়ে যাওয়া স্বাদ এই দুটি আইটেম হল ‘রাজশাহী বিরিয়ানি’ এবং রবীন্দ্রনাথের বিখ্যাত চরিত্র ভিত্তিক আইটেম ‘চিকেন চারুলতা’। এই দুটি আইটেম প্রস্তুত করেছে শিলিগুড়ির শেফ দুর্জয় ঘোষ। পেশায় শেফ হলেও শিলিগুড়িতে তিনি খেলাধুলায় বেশ পরিচিত নাম কারন তিনি জাতীয় স্তরের ক্যারাম খেলোয়াড় এবং চার বারের রাজ্য সিনিয়র ক্যারাম চ্যাম্পিয়ন। তবে পেশায় তিনি শেফ।

নিউজ বৃত্তান্ত কে শেফ দুর্জয় জানান যে ‘রাজশাহী বিরিয়ানি’ হল মূলত বাংলাদেশের রাজশাহী জেলার একটি আইটেম যা বানানোর একটি বিশেষ পদ্ধতি আছে। তিনি আরও বলেন যে এই বিরিয়ানি নতুন কিছু নয় তবে তিনি বহুদিন আগে এই রাজশাহী বিরিয়ানির রেসিপিটি জেনেছিলেন পার্টিশন এর সময় বাংলাদেশের রাজশাহী জেলা থেকে থেকে ভারতে আগত কিছু হোটেল ব্যাবসায়ীদের থেকে।

তবে শেফ দুর্জয় আরও বলেন অরিজিনাল রেসিপি থেকে কিছুটা আলাদা করা হয়েছে আজকের বর্তমান প্রজন্মের টেস্ট অনুযায়ী তবে বেশির ভাগটাই বজায় রাখা হয়েছে। রাজশাহী বিরিয়ানির পাশাপাশি থাকছে আরও একটি আইটেম যা কিনা সংস্কৃত মনস্ক মানুষের কাছে অতি আকর্ষণীয় হয়ে উঠতে পারে। সেই আইটেম হল ‘চিকেন চারুলতা’। শেফ দুর্জয় বলেন চিকেন চারুলতা আইটেমটি মূলত পুরনো কলকাতার একটি শহুরে রেসিপি।

শেফ জানান রবীন্দ্র গুণমুগ্ধ কিছু রাঁধুনে পুরনো কলকাতার কিছু বাঙালি হোটেল ও রেস্তেরায় এই আইটেমটি তৈরি করেছিলেন রবীন্দ্রনাথের চারুলতার নাম অনুসারে। তবে আরও জানা যায় যে সেই সময় এই ধরনের এক্সপেরিমেন্ট অত বেশি মানুষকে আকৃষ্ট না করায় কিছু দিনের মধ্যে এটি আইটেম তৈরি করা বন্ধ হয়ে যায়। তবে রেসিপিটা জোগাড় করে কিছু বদল করে আবার তৈরি করা হয়েছে। পরবর্তীতে বিয়ে বা অন্য অনুষ্ঠানেও এই চালু করতে পারবেন বলে আশা করা যায়।

শেফ আরও বলেন “রাজশাহী বিরিয়ানি গত মাসে লঞ্চ করা হয়েছে এবং মানুষের মধ্যে দারুন রিয়েক্সন। তবে ‘চিকেন চারুলতা’ এই পুজোতেই লঞ্চ করছি”। কেন এই ধরনের খাবার করছেন প্রস্ন করা হলে শেফ দুর্জয় ঘোষ নিউজ বৃতান্ত কে বলেন – “শিলিগুড়ি খাদ্যরসিক দের জায়গা কিন্তু নতুন কিছু প্রচেষ্টা এখানে খুব কম দেখা যায়। আমার অনেক দিনের ইচ্ছা ছিল কিভাবে কিছু নতুন করা যায়। সেই ভাবনা থেকেই এই প্রচেষ্টা। আশা করি শিলিগুড়ির খাদ্য রসিকরা নিরাশ হবেন না। এবারে পুজায় এই দুটি আইটেম আমার শিলিগুড়ির দেশবন্ধুপাড়ায় আমার রেস্তেরাতেই পাওয়া যাবে”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here