রাতের প্রবল বর্ষনে ডুয়ার্সে জলমগ্ন জাতীয় সড়ক সহ বহু এলাকা

0
97

 

মালবাজার: সোমবার রাতভর প্রবল বর্ষনে জলমগ্ন হয়ে পড়ল জাতীয় সড়ক সহ বহু এলাকা। ক্ষতিগ্রস্ত হলো কালভাট, শিশুশিক্ষা কেন্দ্র ও অঙ্গনওয়াড়ি সেন্টার সহ বেশকিছু বাড়ি ঘর। সোমবার সকালে সামান্য বৃষ্টির পর দুপুরের পর থেকে আকাশ পরিষ্কার ছিল। রাত ৯টার পর থেকে ডুয়ার্স ও ডুয়ার্স সংলগ্ন কালিম্পং জেলার পাহাড়ি এলাকা ও ভুটানের পাহাড়ি এলাকায় প্রবল বর্ষন শুরু হয়।

প্রবল বর্ষনের জলধারা নেমে আসে বিভিন্ন নদী ও ঝোড়া দিয়ে। গভীর রাত থেকে প্রবল জলস্রোত জলমগ্ন করে তোলে বহু এলাকা। ওদলাবাড়ির কাছে রমতি ঝোড়া দিয়ে প্রবাহিত জলস্রোত প্লাবিত করে ৩১ নম্বর জাতীয় সড়ক। মঙ্গলবার সকাল ৯টা পর্যন্ত এই জলস্রোত অব্যাহত থাকে। জাতীয় সড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচল থেমে যায়। পরে বৃষ্টি থামলে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। তবে জাতীয় সড়কের গার্ড ওয়াল ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

ক্ষতি আবাদি জমির। ওদলাবাড়ি তিস্তা ব্যারেজ টাউনশিপ, দক্ষিণ ওদলাবাড়ির বহু বাড়ি জলমগ্ন হয়ে যায়। অপরদিকে ভুটান পাহাড়ি এলাকার প্রবল বর্ষনে জলস্রোত সুখানী ঝোড়া দিয়ে হড়পা বানের মতো বয়ে আসে। যার জেরে নাগরাকাটা ব্লকের মনোহরধুরা গ্রামে যাওয়ার কালভার্ট প্লাবিত হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ক্ষতিগ্রস্ত হয় একটি শিশুশিক্ষা কেন্দ্র ও অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্র।

 

মঙ্গলবার সেখানে পঠনপাঠন বন্ধ হয়ে যায়। নাগরাকাটার সাথে মনোহরধুরা গ্রামের যোগসূত্র বন্ধ হয়ে যায়। এক বছর আগে এই রকম এক হড়পা বানে কালভার্টের ক্ষতি হয়েছিল। নাগরাকাটা ব্লকের ছাড়টন্ডু, খয়েরবাড়ি এলাকায় বহু বাড়িতে জল জমে যায়। মাল উদ্যানের মধ্য দিয়ে বয়ে যাওয়া ঝোড়া দিয়ে প্রবল জলস্রোত বইতে থাকায় গার্ড ওয়াল ক্ষতিগ্রস্ত হয়। উদ্যানে পাসে একটি বাড়ি ধসে পড়ে।

মেটেলি ব্লকের শালবাড়ি, ধুপঝোড়া, বিধাননগর এলাকায় বহু বাড়িতে জল জমে যায়। তবে দুপুরের পর থেকে আকাশ পরিষ্কার হলে আস্তে আস্তে জল নেমে যায়। সেচ দপ্তরের নির্বাহী বাস্তুকার কেশব রায় বলেন, মাল ব্লকে গত রাতে প্রায় ১২০ মিমি বৃষ্টি পাত হয়েছে। মালের মহকুমাশাসক বিবেক কুমার বলেন, আমরা পরিস্থিতির দিকে নজর রাখছি। খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আগামীকাল বিশ্বকর্মা পুজা। আকাশের মুখ বিকালে ভার হতে শুরু করেছে। গত রাতের মতো বৃষ্টি হলে পন্ড হবে পূজার বাজার। বিঘ্ন ঘটবে পূজার এমনটাই আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here