চোলাই মদের ব্যবসা রুখতে আদিবাসী মহিলাদের কর্মসংস্থানের উদ্যোগ

0
92

দেবলীনা ব্যানার্জী,  রায়গঞ্জ: গত বছর থেকেই উত্তর দিনাজপুর জেলার আদিবাসী মহিলাদের বিকল্প কর্মসংস্থানের জন্য উদ্যোগ নিয়েছে জেলা আবগারি দপ্তর। দীর্ঘদিন ধরেই জেলায় আদিবাসী মহিলারা চোলাই মদ উৎপাদনের সাথে যুক্ত। আবগারি দপ্তর বারবার অভিযান চালিয়েও এই চোলাই মদের ব্যবসা বন্ধ করতে পারেনি। তাই এবার মহিলাদের বিকল্প কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে চোলাই মদের কারবার বন্ধ করার পরিকল্পনা নিয়েছে প্রশাসন। মদ তৈরি ছেড়ে অন্য কাজে আদিবাসী মহিলাদের সাহায্যের এই পদক্ষেপ নিঃসন্দেহে অভিনব ও প্রশংসার যোগ্য বলে মনে করছে সাধারণ মানুষ।

দপ্তর সূত্রে খবর আর্থিক অনুদানের মাধ্যমে এবং কিছু প্রশিক্ষণের মাধ্যমে অন্য কুটির শিল্প বা রোজগারের নতুন উপায় হাতে দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। গতবছর অনগ্রসর শ্রেণি কল্যাণ দপ্তরের সহযোগিতায় আবগারি দপ্তর মোট ৪৩৮ জনকে কুড়ি হাজার টাকা করে ব্যবসায়িক অনুদান দিয়েছিল। সেই টাকা নিয়ে মদ উৎপাদন বন্ধ করে অন্যান্য ব্যবসায় নিয়োজিত হয়েছিল আদিবাসী মহিলারা। সেই ফলাফলে উৎসাহিত হয়ে এবছর মোট ৬১১ জন আদিবাসী মহিলার নাম পাঠানো হয়েছে।

উত্তর দিনাজপুর জেলা আবগারি বিভাগের সুপারিনটেনডেন্ট তাপস কুমার মাইতি বলেন, “আশা করছি এবছর ও এই মহিলাদের আর্থিক অনুদান দিয়ে স্বনির্ভর করার কাজ খুব দ্রুত চালু করা যাবে। আমরা বিভিন্ন সময়ে আদিবাসী অধ্যুষিত এলাকাগুলোতে অভিযান চালানোর সময় এই বিষয়গুলো নিয়ে প্রচার করে থাকি।” সাধারণত বাড়ির পুরুষদের থেকে মহিলারাই এই মদ তৈরির কাজে বেশি করে যুক্ত থাকে। শুধুমাত্র উৎপাদন নয়, তা বিক্রিও করে এই মহিলারা। এতদিন বারবার বুঝিয়ে সচেতনতামূলক শিবির করেও কোনও ফল হয়নি। এবার রোজগারের এই নতুন উপায় হাতে তুলে দেওয়ায় অবৈধ মদের কারবারকে রোখা সম্ভবপর হবে বলে মনে করছে প্রশাসন।