খাদ্যে ভেজাল কিভাবে মানব সভ্যতাকে গ্রাস করছে, পরিচালক সৌরভ দত্তের ‘দ্য ফোর্থ ডাইমেনশন’ সেই গল্প শোনাবে

0
636
দেবলীনা ব্যানার্জী : বর্তমান সময়ে খাদ্যে ভেজাল এক জ্বলন্ত সমস্যা। কিছুদিন আগেই কলকাতার  ভাগাড় কান্ড নিয়ে তুমুল শোরগোল হয়েছিল। এছাড়া চালে প্লাস্টিক,  দুধে প্লাস্টিক,  ডিমে প্লাস্টিক তো খবরের কাগজ খুললেই শিরোনামে আকচার দেখা যায়। ভেজাল থেকে রেহাই পাচ্ছে না বেবি ফুড, চিপস বা ফ্রুট জুসও। ফলস্বরূপ ক্যানসার বা অন্যান্য মারাত্মক অসুখ থাবা বসাচ্ছে মানবসমাজে। এভাবে চলতে থাকলে তো একদিন শেষ হয়ে যাবে ঈশ্বরের শ্রেষ্ঠ সৃষ্টি মানবসভ্যতা। এই সমস্যাকেই পর্দায় তুলে ধরছেন পরিচালক সৌরভ দত্ত তার  শর্ট ফিল্ম ‘দ্য ফোর্থ ডাইমেনশন’ এ। এর আগে তিনচারটি শর্টফিল্ম করে ফেলেছেন সৌরভ।  তার আগের শর্টফিল্ম ‘রুপকথার কাহিনী’ আড্ডাটাইমস এ ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। ‘রুপকথার কাহিনী’ র মূখ্য চরিত্রে ছিলেন বরুণ চন্দ।
‘দ্য ফোর্থ ডাইমেনশন’ কে পরিচালক নিজের ড্রিম প্রজেক্ট বলছেন। জানালেন স্ক্রিপ্টটা অনেকদিন আগে থেকেই রেডি ছিল, অবশেষে স্বপ্ন পূরণ হয়ে সামনে এসেছে। দেশ বিদেশের বিভিন্ন ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে ছবিটি নিয়ে যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন তিনি।
খাদ্যে ভেজাল যে ছবির মূল ভাবনা তাতে কিছুদিন আগের ভাগাড় কান্ডের ছায়া দেখা যাবে কি?
সৌরভ জানালেন, “না ভাগাড় কান্ডের কোনো উল্লেখ ছবিতে নেই। তবে ছবিটি দেখে ভাগাড় কান্ডের সাথে দর্শক হয়ত রিলেট করতে পারবেন। খাদ্যে ভেজাল এখন বিশ্বব্যাপী সমস্যা। প্রথম বিশ্বের দেশগুলোতে তুলনামূলকভাবে বায়ুদূষণ কম, কিন্তু সেখানেও পাকস্থলীর ক্যানসার, অগ্ন্যাশয়ের ক্যানসারে মানুষ ভুগছে। খাদ্যকে রঙচঙে আর অতিরিক্ত মশালাদার করার জন্য এমন সব উপাদান ব্যবহার করা হচ্ছে যা স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর,  কখনো কখনো তা হয়ত বিষ। “
‘দ্য ফোর্থ ডাইমেনশন’ এর গল্পটা ঠিক কি?
পরিচালক বললেন, ‘আমার গল্পের মুখ্য চরিত্র সময়। অভিদেব নামে একজন মালিক যিনি খাবারে কোনো বাইরের রঙ ও মশলা ব্যবহার করতে  নারাজ। ব্যবসা তার ভালো চলছে না। তার ইনভেস্টর প্রবীর সেন তাকে খাবারে বাইরের উপাদান মেশানোর পরামর্শ দেয়। এত নীতিবান হয়ে ব্যবসা করা যাবে না, এই তার মত। প্রথমে রাজি না হলেও একসময় অভি রাজি হয় এই প্রস্তাবে।এরপরই সময় প্রকট হয় তার সামনে। তারপর কি হয় জানতে হলে দেখতে হবে ছবি।’
গল্প শুনে বোঝাই যাচ্ছে বর্তমান সময়ের সবচেয়ে বড় সমস্যাকে তুলে ধরেছেন পরিচালক। ছবিতে সময়ের চরিত্রে অভিনয় করছেন অভিনেত্রী দেবযানী চট্টোপাধ্যায়,  অভিদেব তথাগত ব্যানার্জি ও ইনভেস্টর প্রবীর সেনের চরিত্রে  আছেন সুরজিত চৌধুরী। ছবির এডিটিং করেছেন তমোনুদ মুখার্জি  এবং সঙ্গীত পরিচালক রাজদীপ গাঙ্গুলি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here