সিকিমে মেঘভাঙ্গা বৃষ্টিতে জেমু, লাচেনের পর্যটকদের উদ্ধার করে আনা হচ্ছে গ্যাংটকে

0
995
শ্রেয়সী কুণ্ডু, সিকিম: প্রতিবেশী রাজ্য সিকিমে সোমবার মেঘভাঙ্গা বৃষ্টিতে বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। সিকিম পর্যটন দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, রাজ্যের বিভিন্ন অংশে বিশেষ করে জেমু ও লাচানে কয়েকশো পর্যটক আটকে আছেন। ইতিমধ্যেই কিছু পর্যটককে জেমু থেকে উদ্ধার করে লাচেনে নিয়ে আসা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে তাঁদের রাজধানী শহর গ্যাংটকে পাঠানো হচ্ছে। পরবর্তীতে সেখান থেকে তাঁদের গন্তব্যে পাঠানো হবে।
যদিও এই প্রক্রিয়াটি শেষ হতে আরও ২৪ ঘণ্টা লেগে যাবে বলে সিকিম পর্যটন দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে। লাচেনে রাখা পর্যটকদের খাওয়ারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তিস্তা নদী সংলগ্ন বিস্তীর্ণ অংশ জলমগ্ন হয়ে পড়ায় প্রশাসন হাইঅ্যালার্ট জারি করেছে। সিকিম কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দপ্তরের আধিকারিক গোপীনাথ রাহা জানিয়েছেন, মেঘভাঙ্গা বৃষ্টিতে তিস্তায় জলস্তর কিছু জায়গায় বিপদসীমার উপর দিয়ে বইছে। নদী তীরবর্তী এলাকার বাসিন্দাদের সরে যেতে প্রশাসন মাইকিং করছে।
এদিকে আটকে থাকা পর্যটকদের গ্যাংটকে নিয়ে আসার কাজ সিকিম সরকার শুরু করেছে। পাশাপাশি বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরকেও তৈরি থাকতে বলেছে। এদিকে তিস্তায় জলস্ফীতিতে পশ্চিমবঙ্গের কালিম্পং জেলা প্রশাসন সতর্ক হয়েছে। এই অঞ্চলের পর্যটন ব্যবসায়ীদের সর্ববৃহৎ সংগঠন ইস্টার্ন হিমালয়া ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুর অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য সুপ্রতীক বসু জানিয়েছেন, এখন পর্যটনের মরশুমের শেষ পর্যায়।
আগামী সেপ্টেম্বর মাসের শেষদিকে পর্যটনের দ্বিতীয় মরশুম শুরু হবে। কিছু পর্যটক এখনও পাহাড়ে আছেন। যেহেতু মরশুম শেষের পথে এবং বর্ষা শুরু তাই এসময় আমরা পাহাড়ে পর্যটকদের পাঠাই না। কিন্তু কিছু পর্যটক নিজেদের উদ্যোগে পাহাড়ে যান। তাঁরাই আটকে আছেন। আশাকরি সিকিম সরকার তাঁদের নিরাপদে সমতলে নামিয়ে এনে গন্তব্যে পৌঁছনোর ব্যবস্থা করে দেবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here