দিনহাটায় স্বর্ণ শিল্পীদের প্রতিবাদ মিছিল

0
93

সুভাষ মন্ডল, কোচবিহার : দিনহাটা তে বহুজাতিক বিভিন্ন সংস্থা তাদের শাঁখা খুলে নানাভাবে ক্ষুদ্র ব্যবসার উপর আক্রমণের  প্রচেষ্টা শুরু করেছে। অশুভ এই প্ৰচেষ্টার বিরুদ্ধে  প্রতিবাদে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে পথে নামল বঙ্গীয় স্বর্ণ শিল্পী সমিতি। এই সংস্থা গুলি সীমান্ত এই মহকুমায় তাদের শাখা খুললে বহু শ্রমিক কর্মহীন হয়ে পড়বে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়। সংগঠনের দিনহাটা শাখার পক্ষ থেকে শুক্রবার দিনহাটায় প্রতিবাদ মিছিল ছাড়াও এক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বঙ্গীয় স্বর্ণ শিল্পী সমিতির দিনহাটা শাখার পক্ষ থেকে এদিন দিনহাটা শহরের মহামায়া পাট মন্দির চত্বর থেকে এই প্রতিবাদ মিছিল বের হয়ে শহরের বিভিন্ন পথ পরিক্রমা করে। সংগঠনের দিনহাটা মহকুমা কমিটির সম্পাদক তথা রাজ্য সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য নিখিল কর্মকার, সভাপতি কানাইলাল কর্মকার, সাধন কর্মকার, শংকর রায় কর্মকার, মদন কর্মকার প্রমুখের নেতৃত্বে স্বর্ণ শিল্পীদের এদিনের এই মিছিল দিনহাটা শহরের বিভিন্ন পথ পরিক্রমা করে। মিছিল শেষে মন্দিরের হলঘরে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

ওই সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে উপস্থিত সকলে দিনহাটার বিভিন্ন স্থানে বহুজাতিক সংস্থা গুলি শোরুম খোলার যে চেষ্টা শুরু করেছে তার বিরুদ্ধে সরব হন সকলেই। এই শিল্পের সাথে যুক্ত ছোট ছোট শিল্পীদের রক্ষা করতে কোন ভাবেই দিনহাটা মহকুমা তে বহুজাতিক এই সংস্থাগুলো যাতে তাদের শোরুম খুলতে না পারে তার জন্য তারা শেষ পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবেন বলেও সংগঠন নেতৃত্ব জানান। এদিনের সভায় সকলেই এর বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনের ডাক দেন।

কোনভাবেই স্থানীয় প্রশাসন যাতে এদের অনুমতি না দেয় তার জন্যও এদিন সকলে সরব হন। সভা শেষে সংগঠন সম্পাদক নিখিল কর্মকার জানান সীমান্ত শহর দিনহাটায় বহু স্বর্ণ শিল্পীদের দোকান রয়েছে। এই শিল্পের সাথে ছোট ছোট শিল্পীরাও জড়িত রয়েছে। বহুজাতিক সংস্থা গুলোর প্রত্যন্ত এই শহরে তাদের শোরুম খুললে পক্ষান্তরে আঘাত আসবে এখানকার ছোট ছোট শিল্পী দের উপর। কোন ভাবেই এই শিল্পীদের উপর যাতে আঘাত না আসে সেদিকে লক্ষ্য রেখেই এদিন তারা প্রতিবাদ মিছিল এর পাশাপাশি সভার মধ্য দিয়ে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলার ডাক দেন।

স্বর্ণ শিল্প এবং এই শিল্পের সাথে যুক্ত কয়েক হাজার শিল্পীকে বাঁচাতে এদিন প্রতিবাদ মিছিল ও সভা অনুষ্ঠিত হলেও আগামীতে মহাকুমা জেলা ও রাজ্য স্তরে আন্দোলনকে আরও দুবার করে তোলা হবে। প্রয়োজনে প্রশাসনের কাছেও দাবি জানানো হবে এই শিল্পীদের বাঁচাতে জানো কোন হবে এদের ছাড়পত্র দেওয়া না হয়। এরা প্রত্যন্ত এই মহাকুমা তে শোরুম খুললে কয়েক হাজার শ্রমিকের উপর নেমে আসবে বলেও নিখিল কর্মকার উল্লেখ করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here