নম্বরের পরিমাপে দ্বিতীয় বিভাগ পেলেও প্রতিকূলতার লড়াইয়ে প্রথম স্থানে নয়নহীন পিঙ্কি

0
384

উজ্জ্বল হোড়, জলপাইগুড়ি : নিজে দুচোখ দিয়ে কখনো দেখেনি সূর্যের আলো, তাই পড়াশুনো করে উচ্চ শিক্ষিত হয়ে জ্ঞানের আলো ছড়িয়ে দিতে চায় সদ্য ৩৪৭ নম্বর পেয়ে মাধ্যমিক পাশ করা জন্মান্ধ পিঙ্কি অধিকারী, জলপাইগুড়ি জেলার রাজগঞ্জ ব্লকের কামাত পাড়ার মেঠো পথ দিয়ে মায়ের সাইকেলে চেপে রোজকারের যাত্রা শুরু হতো পিঙ্কির, জাতীয় সড়কের বাস স্ট্যান্ডে এসে মেয়েকে বাসে উঠিয়ে দিয়ে গ্রামের পথে ছুটে যেতো মেধাবী পিঙ্কির মা কল্পনার সাইকেল, কারন পৌঁছতে হবে সংসারের একমাত্র উপার্জন স্থল মিড ডে মিলের রান্নার কাজে।

অপরদিকে বাস পৌঁছে যেতো বেলাকবা গার্লস স্কুলের সামনে সহ পাঠীরা হাত ধরে পিঙ্কিকে বাস থেকে নামিয়ে নিয়ে যেতো ক্লাস রুমে, এভাবেই কঠিন লড়াইয়ের মধ্যে দিয়ে চলছিলো জন্মান্ধ পিঙ্কির মাধ্যমিকের প্রস্তুতি ,সংসারে মূল পিঙ্কির বাবা নারায়ণ অধিকারী দীর্ঘদিন থেকেই অসুস্থ্য ,উপার্জন বলতে গেলে মিড ডে মিল রান্না করে পিঙ্কির মায়ের উপার্জন করা সামান্য অর্থ।

তবে এই লড়াইয়ে সদা পিঙ্কির পাশে থেকেছে তার স্কুলের দিদিমুনি থেকে সহপাঠী সবাই, বিশেষ ব্রেইল পদ্ধতিতে পরীক্ষা দিয়ে ৩৪৭ নম্বর পেয়ে মাধ্যমিক পাশ করে আজ নয়নহীন পিঙ্কিই আজ সবার নয়নের মনি, আর্টস নিয়ে পড়ে ভবিষ্যতে শিক্ষিকা হয়ে জ্ঞানের আলো ছড়িয়ে দেবার ইচ্ছা বলে জানালো পিঙ্কি অধিকারী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here