বাদ্যযন্ত্র নিয়ে বিমানে উঠতে বাধা শ্রেয়া ঘোষালকে

0
323
ফাইল চিত্র
দেবলীনা ব্যানার্জীঃ আজকাল সোশ্যাল মিডিয়া হয়ে উঠেছে প্রতিবাদের সবচেয়ে বড় মাধ্যম।  সাধারণ মানুষ তো বটেই সেলিব্রিটিরাও আজকাল নিজেদের ক্ষোভ উগড়ে দেন সোশ্যাল সাইটে। তবে গায়িকা শ্রেয়া ঘোষাল স্বভাবতই নির্বিবাদী মানুষ। সোশ্যাল মিডিয়ায় এই প্রথম কোনও কিছু নিয়ে সরব হলেন শ্রেয়া। এর আগে শ্রেয়াকে সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হতে দেখা যায়নি।কিন্তু ঘটনাটি ঠিক কি?
সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্সের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন শ্রেয়া।বুধবার রাতে সিঙ্গাপুরে ঘটেছে এই ঘটনা। নিজের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টে সেই অভিজ্ঞতার কথা জানিয়ে সঙ্গীতশিল্পী লিখেছেন, “মিউজিশিয়ানরা কিংবা অন্য কেউ মূল্যবান কোনও বাদ্যযন্ত্র তাদের বিমানে নিয়ে যাক, এটা মনে হয় সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স চায় না। ধন্যবাদ। অনেক শিক্ষা হল।” শ্রেয়ার এই টুইটের পরেই বিমান সংস্থার পক্ষ থেকে টুইট করে শ্রেয়ার কাছে ক্ষমা চেয়ে নেওয়া হয় এবং ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত করা হয়। 
গোটা ঘটনার দায় স্বীকার করে সংশ্লিষ্ট ওই এয়ারলাইন্স গায়িকাকে উদ্দেশ্য করে তাদের পক্ষ থেকে টুইট করে , “যা ঘটেছে আমরা তা শুনে দুঃখিত। আমাদের কর্মীরা শেষ পর্যন্ত কী বলেছিল, সেটা বিস্তারিত জানালে ভাল হয়।”এর আগে শ্রেয়াকে সোশ্যাল মিডিয়ায় কোনোদিন সরব হতে দেখা যায়নি। যদিও পরিষেবার জন্য সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্সের সুনাম রয়েছে। তাই শ্রেয়ার এই প্রতিবাদ নজর কেড়েছে নেটিজেনদের।
শ্রেয়াকে সমর্থন করেছেন ভক্তদের একটা বড় অংশ। শ্রেয়া সাধারণত খুবই শান্ত স্বভাবের মানুষ। তিনি নিজেও এটা বলেন। আর তাই তাঁর পক্ষ থেকে এধরনের টুইট দেখে বিস্মিত হয়ে গিয়েছেন অনেকেই। প্রিয় গায়িকাকে সমর্থন করে এক ভক্ত লিখেছেন, “নিশ্চয় সেরকম কিছু হয়েছে, নাহলে কিন্তু শ্রেয়া এভাবে সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ উগরে দেওয়ার মানুষ নন।” কেউ বা আবার লিখেছেন, “সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্সকে বিশ্বের অন্যতম সেরা বিমান সংস্থা বলেই এতদিন জানতাম। তবে পরিস্থিতি সেরকম বেগতিক না হলে, শ্রেয়ার মতো মানুষ টুইট করে প্রতিবাদ করতেন না।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here