ভুল শুধরে নিয়ে সামনে এল নতুন ব্যোমকেশ ও অজিত

0
207
দেবলীনা ব্যানার্জীঃ বাঙালি সত্যান্বেষী হিসেবে আগমন ঘটেছে নতুন ব্যোমকেশের। সাথে আছে নতুন অজিত। এখবর এতদিনে সকলেই জেনে ফেলেছি। আসলে ব্যোমকেশ নিয়ে বাঙালি নস্টালজিয়ায় আক্রান্ত।  সেজন্যই বড়পর্দা,  ছোটপর্দা,  ওয়েব সিরিজের জগতে একগাদা ব্যোমকেশ ও অজিত। আবির চট্টোপাধ্যায়,  যিশু সেনগুপ্ত থেকে শুরু করে ওয়েবে অনির্বাণ ভট্টাচার্য, এরা সকলেই ব্যোমকেশ হিসেবে জনপ্রিয়তা পেয়েছেন।আর এবার শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘মগ্নমৈনাক’ গল্পটি নিয়ে তৈরি হচ্ছে নতুন ছবি ‘সত্যান্বেষী ব্যোমকেশ ‘। এখানে ব্যোমকেশের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়। অজিতের ভূমিকায় রুদ্রনীল ঘোষ। অভিনেতাদের মতো পালটেছে ছবির পরিচালকও। অঞ্জন দত্ত বা অরিন্দম শীলের জায়গায় এসেছেন নতুন পরিচালক। সায়ন্তন ঘোষাল। অঞ্জন দত্ত থাকছেন চিত্রনাট্যকার ও প্রধান উপদেষ্টার ভূমিকায়। সংগীত পরিচালনার দায়িত্ব সামলেছেন নীল দত্ত।
স্বাধীনতার ঠিক পরের কলকাতা গল্পের পটভূমি।  গল্পে মিশে রয়েছে দেশদ্রোহিতার গন্ধ। সন্তোষ সমাদ্দারের বাড়িতে থাকে অনাত্মীয়া হেনা। কিন্তু বাড়ির লোক যা সুবিধা পায় না, সেই সুবিধা ভোগ করে হেনা। এই হেনা হঠাৎই একদিন ছাদ থেকে পড়ে মারা যায়। রহস্যোদঘাটনের কাজে নেমে পড়েন ব্যোমকেশ। সঙ্গে তাঁর চিরন্তন সঙ্গী অজিত। তদন্ত করতে গিয়ে জানা যায় বাড়ির দুই ছেলে যুগল আর উদয়ের নজর ছিল হেনার দিকে। সন্তোষবাবুর সেক্রেটারি রবি বর্মাও সন্দেহের বাইরে ছিল না। ক্রমে জানা যায় এক বাঁশিওয়ালার খবর। শহরের অন্য এক প্রান্তে খোঁজ মেলে একটি ঘরের। যার চাবি ছিল হেনার কাছে। কিন্তু ঘরের ব্যাপারে ঘুণাক্ষরেও জানত না কেউ। এই নিয়েই রহস্য ক্রমে জট বেঁধেছে ‘মগ্নমৈনাক’-এ।
কিছুদিন আগেই সামনে এসেছিল এই ছবির পোস্টার। কিন্তু প্রথম পোস্টারে ছিল ভুল। পোস্টারের উপরে ‘শ্যামসুন্দর দে নিবেদিত’-র জায়গায় লেখা ছিল ‘শ্যামসুন্দর দে নবেদিত’। ছোট্ট ভুল কিন্তু সোশ্যাল সাইটে যেদিন ‘সত্যান্বেষী ব্যোমকেশ’-এর পোস্টার প্রকাশ হয়, সেদিনই তা চোখে পড়েছিল সকলের। এবার সময় থাকতেই প্রযোজনা সংস্থা সেটি শুধরে নিল। সোশ্যাল সাইটে ছড়িয়ে পড়েছে নতুন পোস্টার। আর এই পোস্টারটি একেবারে  নিখুঁত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here