বাংলাদেশে বাড়ছে ডেঙ্গুর ভয়াবহতা

0
136
ফাইল চিত্র
ঢাকা : বাংলাদেশে বর্ষা মৌসুমে প্রতি বছর সারাদেশে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া বিস্তার লাভ করে। বিশেষ করে, ঢাকায় এডিস মশার দৌরাত্ম্য বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়ার প্রকোপ। এ বছরও তার ব্যতিক্রম হয়নি। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার তথ্য তা-ই বলছে। সে অনুযায়ী গত ২৪ ঘণ্টায় ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১৩০ জন। সারা দেশের বেলায় সংখ্যাটি দেড়শ’ ছাড়িয়েছে। আর ঢাকায় গত ১১ দিনে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ১ হাজার ৫৪৬ জন, যা গত এক মাসের আক্রান্তের সমান।
বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা বলছেন, এপ্রিল থেকে অক্টোবর ডেঙ্গু ছড়ানোর বাহক এডিস মশার উপদ্রব বাড়ে। থেমে থেমে বৃষ্টির কারণে বিভিন্ন স্থানে জমে থাকা পানি এডিস মশার প্রজননের জন্য উপযোগী। এডিস মশার বংশবিস্তার ঠেকাতে বাড়ির আশপাশসহ পানি জমে থাকা স্থানগুলো পরিষ্কার রাখার পরামর্শ তাদের।
এদিকে দেশের সরকারি ও বেসরকারি মিলিয়ে ৪৭টি হাসপাতাল থেকে ডেঙ্গু রোগীর তথ্য সংগ্রহ করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এর বাইরেও বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল এবং বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের প্রাইভেট চেম্বারে যেসব ডেঙ্গু রোগী চিকিৎসা নিয়ে থাকেন, তার হিসাব স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে থাকে না।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের তথ্য অনুযায়ী, চলতি মাসের ১ থেকে ১৪ জুলাই পর্যন্ত ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে ২ হাজার ১৬৪ জন হাসপাতালে চিকিৎসা নেন; যেখানে এর আগের মাসে অর্থাৎ জুন মাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন ১ হাজার ৭৫৯ জন। এ ছাড়া চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে ১৪ জুলাই পর্যন্ত ৪ হাজার ২৪৭ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। এর মধ্যে জানুয়ারিতে ৩৮ জন, ফেব্রুয়ারিতে ১৮ জন, মার্চে ১৭ জন, এপ্রিলে ৫৮ জন, মেতে ১৯৩ জন, জুনে ১ হাজার ৭৫৯ জন এবং জুলাইয়ে ২ হাজার ১৬৪ জন হাসপাতালে ভর্তি হন।
গত ১৪ দিনে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ১৬৪ জন, যা গত পুরো মাসে ডেঙ্গুতে আক্রান্তের দেড় গুণ। জানুয়ারি মাসে এ রোগে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ১ হাজার ৭৫৯ জন। আর এরই মধ্যে চলতি বছরে ডেঙ্গু আক্রান্ত তিনজনের মৃত্যু হয়েছে।
অন্যদিকে বিভিন্নভাবে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়ানোর অভিযোগ করেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন। তিনি ডেঙ্গু নিয়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়তে পারে, বিভ্রান্তি সৃষ্টি হতে পারে এমন সংবাদ পরিবেশন থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানান সংবাদমাধ্যমকে।